আজ ২১শে শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই আগস্ট ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

“উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ৩৪৬৪ জন মেধাবী প্রার্থীকে প্যানেল গঠনের মাধ্যমে নিয়োগ দেয়া হোক”–আলী আহসান বুলবুল।



কৃষিই স্বস্তি, কৃষিই মুক্তি। কৃষি হচ্ছে দেশের প্রান।একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে, দেশ যখন বঙ্গবন্ধুর “স্বপ্নের সোনার বাংলা “গঠনে এগিয়ে যাচ্ছে তখনই বৈশ্বিক মহামারী (covid-19)করোনা ভাইরাসে কৃষিব্যবস্থা স্থবির হয়ে পড়ার আশংকা রয়েছে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে ধন্যবাদ জানাই করোনার মতো ভয়াবহ মহামারী কে আপনি দক্ষতা দিয়ে মোকাবেলা করে চলেছেন।আপনার নির্দেশ মোতাবেক আমরা ডিপ্লোমা কৃষিবিদরা আমাদের যে যার অবস্থান থেকে কাজ করে যাচ্ছি। আমরা খুব শীঘ্রই করোনার প্রভাব থেকে মুক্তি পাবো ইনশাআল্লাহ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি যানেন যে,দেশের কৃষি ক্ষেত্রে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর অগ্রনী ভূমিকা পালন করে আসছে।এই কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ- সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ কৃষকের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করার মাধ্যমে বাংলাদেশের কৃষি ক্ষেত্রে বিরাট সাফল্য এনেছেন।উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ তাদের সাফল্যের স্বীকৃতি স্বরূপ বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকসহ আরো অন্যান্য পদক এ ভূষিত হয়েছেন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন অপেক্ষার পর গত ২৩ মে জানুয়ারি ২০১৮ ইং তারিখে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এরপর প্রিলিমিনিয়ারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় ১৭ জুলাই ২০১৯ ইং তারিখে। উল্লেখ্য যে, প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল ২৮ হাজারের অধিক। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয় ১০০৩৯ জন পরীক্ষার্থী।এরপর গত ২৫ শে আগস্ট, ২০১৯ ইং তারিখে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। লিখিত পরীক্ষায় মৌখিক পরীক্ষার জন্য মনোনীত হন ৫১১৪ জন পরীক্ষার্থী।গত ২৮/১২/২০১৯ ইং তারিখ থেকে ১৪/০১/২০২০ তারিখ পর্যন্ত মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গত দীর্ঘ দুই বছরের নিয়োগ প্রক্রিয়ার নীতিমালা ও জেলা কোটা অনুসরণ না করে নিদিষ্ট কিছু জেলাকে অতিরিক্ত সুযোগ দিয়ে এক তরফা চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করে।যেখানে ১০০৩৯ জন লিখিত পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫১১৪ জন উত্তীর্ণ হয়। যার মাঝে ১৬৫০ জন চূড়ান্তভাবে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়।বাকি ৩৪৬৪ জন নিয়োগ বঞ্চিত হই।

পদ বঞ্চিত কিছু মেধাবী একত্রিত হয়ে মহামান্য হাইকোর্টে রিট পিটিশন দাখিল করেন, এর পরিপ্রেক্ষিতে ১৬ ই ফেব্রুয়ারি মহামান্য হাইকোর্ট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরকে বেশকিছু রুল জারি করে এবং নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিতের আদেশ আরোপ করেন। কিন্তু কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর হাইকোর্টের রুল সমূহের জবাব না দিয়ে সুপ্রিম কোর্টের অ্যাপিলেট ডিভিশনে আপিল করে। ১২ মার্চ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের ১নং বেঞ্চ তথা মহামান্য প্রধান বিচারপতিসহ মোট ৭ বিচারপতির বেঞ্চ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আপিল খারিজ করে হাইকোর্টের রুলের দ্রুত জবাব দিতেও মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন। এর পথে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর অদ্যাবধি রুলের জবাব দেয়নি।
মামলাটি এখনো চলমান…..?
হে মানবতার মা, আপনি তো বলেছেন “মহামারী করোনা ভাইরাসের পর যে দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে তার থেকে একমাত্র কৃষিই মানুষকে বাঁচাতে পারে। যেহেতু কৃষি দেশের প্রান।আপনার কৃষি বান্ধব সরকার কৃষিক্ষেত্রে পর্যাপ্ত পরিমাণ বাজেট প্রদান করলেও, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদাসীনতার কারণে নিয়োগ প্রক্রিয়া প্রায় দীর্ঘ দুই বছরেও বাস্তবায়ন সম্ভব হয় নাই।

হে মমতাময়ী নেত্রী, একমাত্র আপনিই পারেন এ সমস্যার সুষ্ঠু সমাধান করতে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি আমাদের অভিভাবক। অবিলম্বে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ বাকি ৩৪৬৪ জন চাকরি প্রত্যাশী প্যানেলের মাধ্যমে নিয়োগ প্রদান করে মাাঠ পর্যায়ে কৃষি কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন করে, দেশের কৃষি খাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার সুযোগ দিন।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ” আপনার অঙ্গিকার, মুজিব বর্ষে থাকবে না কেউ বেকার ” পূরণের অন্যতম পদক্ষেপ হবে এই প্যানেল গঠন করে ৩৪৬৪ জন বেকারের চাকুরী নিশ্চিতের মাধ্যমে।

বিনীত অনুরোধে…
আলী আহসান বুলবুল
উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা প্যানেল পত্যাশী-২০১৯।
জামালপুর জেলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর